নারায়ণগঞ্জ৭১: এক সময় যাকে পরম যত্নে লালন-পালন করে বড় করেছেন মা সাহেলা, সেই সন্তানই আঘাত করেছে তাকে। নাড়ির সম্পর্ক যেন কাল হয়ে দাড়িয়েছে তার। সম্পত্তির লোভে নিজ সন্তান মামুন ও পুত্র বধূ আঁখি আক্তারের কাছে নির্যাতিত হচ্ছেন নিরীহ এই মা। আঁখি নামের পুত্র বধূর শলা পরামর্শে অবশেষে মামুন নামের সন্তান শয়তানে পরিণত হয়ে মায়ের হাত ভেঙ্গে দেয় ।

শনিবার (২৯ জুন) ফের নির্যাতন করে ৪৫ বছর বয়সী সালেহার হাত ভেঙ্গে দেয় তারা। আড়াইহাজার ব্রাহ্মন্দী ইউপির লস্করদী কোণাবাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত সালেহা বেগমকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

সাহেলা বেগম জানান, তার স্বামী আব্দুল করিম ৬ বছর আগে মারা যান। এরপর থেকে একাই তিন ছেলে ও এক মেয়েকে লালন-পালন করে বড় করে আসছেন। এখন স্বামী রেখে যাওয়া কিছু সম্পতিই তার কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। সন্তানদের আদর যতœ করে বড় করে তুললেও তার ঠাঁই হচ্ছে না সন্তানদের কাছে।
তিনি বলেন, ‘দীর্ঘ দিন ধরে দুই ভাসুর হালিম ও জলিলের নির্দেশে তাকে মারধর করছে তারা। স্থানীয় ইউপি সদস্য খোকনসহ গণ্যমাণ্য ব্যক্তিদের কাছে বিচার চেয়েও কোনো প্রতিকার হচ্ছে না। শনিবার ফের মামুন আমাকে লাঠি দিয়ে আঘাত করে এবং আমার একহাত ভেঙ্গে ফেলে। এ সময় বাঁধা দিলে তার ছোট ছেলে মাসুকেও পেটানো হয়।’

আড়াইহাজার থানার ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, ‘এ ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ গ্রহণ করা হয়েছে। অতি দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’