নারায়ণগঞ্জ৭১: সিদ্ধিরগঞ্জের এমএ স্বপন ওরফে স্বপন মন্ডল এক সময় রহমান ফিলিং ষ্টেশনের ট্যাংকলরী থেকে ডিব্বা দিয়ে জ¦ালানি তেল কুড়াতেন। তিনি এখন শত কোটি কাটার মালিক। ঢাকার উত্তরা ও নারায়ণগঞ্জের রূপায়নে পৃথক দুইটি ফ্ল্যাট, ১২টি ট্যাংকলরী, একটি প্রাইভেটকার, রূপগঞ্জ ও কুমিল্লার দাউদকান্দিতে রয়েছে ২টি ফিলিং ষ্টেশনসহ নিজ বাড়িতে চলছে ৫ তলা বাড়ির নির্মাণ কাজ।

সম্প্রতি সিদ্ধিরগঞ্জে চোরাই তেল কারবারের খবর পেয়ে অভিযান চালায় র‌্যাব। অভিযানে সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল এসও এলাকায় স্বপন মন্ডলের আস্তানা থেকে বিপুল পরিমাণ চোরাই জ্বালানি তেলসহ দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় পলাতক আসামি হিসেবে চোরাই তেলের মূলহোতা স্বপন মন্ডলের বিরুদ্ধে মামলা করে র‌্যাব।

স্বপন মন্ডল মহানগর শ্রমিক দলের সভাপতি এসএম আসলামের ভাই হলেও এখন আওয়ামী লীগে যোগদান করা নাসিকের সাবেক কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম মন্ডলের চাচাতো ভাই এবং তার সহযোগীদের মধ্যে অন্যতম একজন। স্বপন এরই মধ্যে বিপুল পরিমানের অর্থ খরচ করে সরকার দলীয় একটি সংগঠনের সভাপতি পদও বাগিয়ে নিয়েছেন।

গত ২৭ আগষ্ট রাতে সিদ্ধিরগঞ্জের এসও রোড এলাকায় স্বপন মন্ডলের আস্তানায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমানের চোরাই তেলসহ ২ সহযোগিকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এ ঘটনায় র‌্যাব বাদি হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি মামলা (নং-৬৯) দায়ের করেন। মামলায় পলাতক আসামি করা হয়েছে এসও রোড এলাকার চোরাই তেল কারবারীদের মূলহোতা এম এ স্বপন ওরফে স্বপন মন্ডলকে। এছাড়াও স্বপনের বিরুদ্ধে গত বছর জামায়াত-শিবির সংশ্লিষ্ট সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি নাশকতার মামলা রয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২৭ আগষ্ট রাতে গোদনাইল এসও এলাকায় স্বপন মন্ডলের চোরাই জ্বালানি তেলের আস্তানা থেকে ইমাম হোসেন (৩৫) ও শফিকুল ইসলামকে (৪৬) গ্রেফতার করে র‌্যাব। এসময় নাসিক ৬নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর সিরাজ মন্ডলের সহযোগীদের মধ্যে অন্যতম স্বপন মন্ডল (৪০) কৌশলে পালিয়ে যায়।

এজহারে উল্লেখ করা হয়, পলাতক আসামী এম এ স্বপন ওরফে স্বপন মন্ডলসহ গ্রেফতারকৃতরা দীর্ঘদিন যাবৎ অবৈধ চোরাই জ্বালানি তেল (এটিএফ জেট ফুয়েল) নিজেরা মজুদ রেখে কেনাবেচা করে আসছিল। গ্রেফতারকৃত ও পলাতক আসামিরা অভ্যাসগতভাবে পরস্পর যোগসাজসে বিভিন্ন কৌশলে অবৈধ উপায়ে জ্বালানি তেল সংগ্রহ এবং মজুদ করে অবৈধভাবে কেনাবেচা করে আসছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে। আসামীদের স্বীকারোক্তি মতে ৫টি লোহার ড্রামে ভর্তি মোট ১ হাজার পঞ্চাশ লিটার জেট ফুয়েল যার আনুমানিক মূল্য ৭৫ হাজার ৬’শ টাকা জব্দ করা হয়। এছাড়া পরিবহনের কাজে ব্যবহৃত ১টি পিকআপ ভ্যান (ঢাকা মেট্রো-ন: ১৬-৩৯০৩) ধৃত আসামি ইমাম হোসেনের কাছ থেকে তেল বিক্রির নগদ ৫৫ হাজার ৯০ টাকা জব্দ করা হয়।
এ বিষয়ে কথা সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আজিজুল হক জানান, যত বড় ক্ষমতাশালীই হোক না কেন? পুলিশ তাদের ছাড় দিবে না। এম এ স্বপন ওরফে স্বপন মন্ডলের বিরুদ্ধে চোরাই তেল ব্যবসার অভিযোগে মামলা করেছে র‌্যাব। তাকে গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে।