২ সেপ্টেম্বর বিকালে ৩য় শ্রেনির শিশু ছাত্রী ধর্ষনের শিকার হয়। ২৩ সেপ্টেম্বর ভিকটিমের মা বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় মামলা করে। গোপন অনুসন্ধানের মাধ্যমে সত্যতা পেয়ে র‌্যাব-১১ এর একটি বিশেষ দল কাজ শুরু করে। মামলার দুই দিনের মধ্যেই বুধবার (২৫ সেপ্টেম্বর) ভোর রাতে রূপগঞ্জের চাঞ্চল্যকর বহুল আলোচিত শিশু ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামী লিটনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় র‌্যাব।

গ্রেফতারকৃত লিটন (৪৫) রূপগঞ্জের শান্তিনগরের বাচ্চু মিয়ার ছেলে। তাকে ঢাকার কেরানীগঞ্জ থানার কদমতলী এলাকা থেকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

র‌্যাব-১১ এর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানিয়ে বলা হয়, গ্রেফতারকৃত লিটনকে জিজ্ঞাসাবাদ ও প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা যায় ধর্ষণের শিকার মেয়েটি ১০ বছরের শিশু এবং সে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেনীতে অধ্যয়নরত।

শিশুটি তার পরিবারের সাথে রূপগঞ্জের শান্তিনগর এলাকায় বসবাস করতো। ঘটনার দিন গত ২২ সেপ্টেম্বর বিকালে শিশুটি তার বাসার পাশের বালুর মাঠে খেলাধুলা করার সময় চকলেট খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে কৌশলে শিশুটিকে লিটন তার কাম-প্রবৃত্তি চরিতার্থ করার উদ্দেশ্যে তার নির্জন বাসায় ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে ভিকটিমকে জোর পূর্বক ধর্ষন করে। ধর্ষনের পর এ ব্যাপারে কাউকে কিছু না বালার জন্য ভিকটিমকে হুমকি দিয়ে বাড়ী পাঠিয়ে দেয়। পরবর্তীতে ভিকটিম বাড়ী এসে ব্যথায় চিৎকার করলে আশেপাশের বাড়ির লোকজন চলে আসলে আসামী লিটন পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় সোমবার (২৩ সেপ্টেম্বর) ভিকটিমের মা বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধনী-২০০৩) মোতাবেক একটি মামলা দায়ের করেন।

আরও জানান, গোপন অনুসন্ধানের মাধ্যমে সত্যতা পেয়ে র‌্যাব-১১ এর একটি বিশেষ আভিযানিক দল বুধবার ভোর রাতে ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জ থানাধীন কদমতলী এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে অভিযুক্ত আসামী লিটনকে গ্রেফতার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামী বর্ণিত ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে। গ্রেফতারকৃত লিটনের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানায় আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।